,

শিরোনাম :
লক্ষ্মীপুরে আন্তর্জাতিক মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ দিবস পালিত লক্ষ্মীপুরে দোকান দখলের চেষ্টা, ভাংচুর লক্ষ্মীপুরে খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি ও সুস্থতার জন্য দোয়া অনুষ্ঠিত  লক্ষ্মীপুরে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ফসলি-জমি লক্ষ্মীপুরে হত্যা মামলার আসামীর মোটরসাইকেল শোডাউন লক্ষ্মীপুর ব্যবসায়ীর উপর হামলার অভিযোগ অনুমতিহীন কোরবানি হাটে অবৈধভাবে আদায় হচ্ছে লাখ-লাখ টাকা! লক্ষ্মীপুরে গরু-মহিষ চোরদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় হত্যার উদ্দেশ্যে এসে হামলা, লুটপাট লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ লক্ষ্মীপুরে দোকান ঘর বিক্রির নামে প্রতারনা

লক্ষ্মীপুরে ড্রাইভারকে তুলে নিয়ে নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার: লক্ষ্মীপুর শহরের উত্তর তেমুহনী থেকে মটরসাইকেল যোগে ফিল্মী স্ট্রালে ড্রাইভার নুর হোসেন আহম্মদকে তুলে নিয়ে চর রমনী মোহন ইউনিয়নের পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন রতনের দোকানে এনে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে আরিফ আহম্মদ তারেক,  মেহেরাজ, সিরাজল হক মোল্লার বিরুদ্ধে।

ঘটনাটি ঘটে, গত সোমবার লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার  চর রমনী মোহন  ইউনিয়নের পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন রতনের দোকানে।

জানা যায়, কমলনগর উপজেলার চর কাদিরা ইউনিয়নের নজির উল্যাহর পুত্র নুর হোসেন আহম্মদ পেশায় একজন ড্রাইভার। সে সদর উপজেলার চর রমনী মোহন ইউনিয়নের জয়নাল মোল্লা বাড়ীর সিরাজল হক মোল্লার পুত্র আরিফ হোসেন তারেকের গাড়ী চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। কিছুদিন পর আরিফ হোসেন তারেকের সাথে লেন-দেন নিয়ে বাকবিতন্ডা হয়। এতে আরিফ হোসেন তারেক ড্রাইভার নুর আহম্মদকে আটক করে তাক ভয়প্রীতি প্রদর্শন করে ১ লক্ষ ২ হাজার টাকা পাবে বলে লিখিত স্টাম্প করে নেন। পরে এ টাকা আদায় করার জন্য তাকে বিভিন্নভাবে হেনস্তা করে। এ টাকার জন্য সোমবার তাকে আটক করে লক্ষ্মীপুর শহরের উত্তর তেমুহনী থেকে মটরসাইকেল যোগে ড্রাইভার নুর হোসেন আহম্মদকে তুলে নিয়ে চর রমনী মোহন ইউনিয়নের পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন রতনের দোকানে এনে সিরাজুল হক মোল্লার পুত্র আরিফ হোসেন তারেক, সিরাজ হক মোল্লা, মেস্তুরী বাড়ীর হারুন ড্রাইভারের পুত্র মেহেরাজ তাকে মারধর ও নির্যাতন চালায়। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে উত্তর তেমুনী রেখে চলে আসে। এরপর আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে।

ড্রাইভার নুর হোসেন আহম্মদ জানান, আরিফ হোসেন তারেক তার বন্ধু মেহেরাজ আমাকে পৌর শহরের উত্তর তেমুহনী এলাকা থেকে তুলে নিয়ে চর রমনী এলাকায় আটক করে মারধর ও নির্যাতন চালায়। এ সময় তার পিতা সিরাজল হক মোল্লাসহ আরো কয়েকজন আমাকে মারধর করে। পরে শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে আমাকে আবার উত্তর তেমুহনীর এনে তারা পালিয়ে যায়। এরপর আশপাশের লোকজন আমাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে প্ররণ করে। এব্যাপারে আমি সদর থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছি।

     এই বিভাগের আরও সংবাদ